সোমবার, ২০ মে, ২০২৪

বিশ্বকাপের স্মৃতিগুলোই নিলামে তুলছেন মেসি


জার্সির রং ও নম্বর দেখেই বোঝা যাচ্ছে এটি কার হতে পারে। কাতার বিশ্বকাপে লিওনেল মেসির পরা এমন ৬টি জার্সি নিলামে তোলা হবে। বার্তা সংস্থা এএফপিকে জার্সির এই ছবি সরবরাহ করেছে নিলাম প্রতিষ্ঠান সোথেবি।
বিশ্বকাপের স্মৃতিগুলোই নিলামে তুলছেন মেসি
  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন

ফুটবল বিশ্বকাপ শুরুর ঠিক ঠিক এক বছর পর অন্যরকম এক ঘোষণা নিয়ে হাজির হয়েছেন লিওনেল মেসি। নিজের ক্যারিয়ারের অপূর্ণতা ঘোচানোর সেই বিশ্বকাপের মূল্যবান স্মৃতিগুলোকেই কিনা নিলামে তুলে দিচ্ছেন এই আর্জেন্টাইন মহাতারকা। বিশ্বকাপে মেসি পরেছেন এমন ৬টি জার্সি তোলা হচ্ছে নিলামে। ফেসবুক বার্তায় যা নিশ্চিত করেছেন মেসি নিজেই।

গতকাল সোমবার (২০ নভেম্বর) বিশ্বের অন্যতম বড় চিত্রকলা, অলংকার ও সংগ্রহে রাখার মতো অন্যান্য জিনিসের ব্রোকার হাউস 'সোথেবি' বিষয়টি জানায়। জার্সিগুলোর দাম আনুমানিক এক কোটি ডলার আশা করছে তারা।

গত বছরের ডিসেম্বরে ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়ে বিশ্বকাপ শিরোপা জিতেছিল আর্জেন্টিনা। মেসি জিতেছিলেন গোল্ডেন বল-ও। বিশ্বকাপে সকল প্রতিপক্ষের বিপক্ষে যে জার্সিগুলো পড়েছিলেন মেসি, সেগুলোই নিলামে ছাড়া হবে আগামী মাসে।

ব্রোকার হাউস 'সোথেবি' জানিয়েছে, দাম সব মিলিয়ে এক কোটি ডলার পেরিয়ে গেলে খেলাধুলার স্মারক নিলামের তোলার ইতিহাসে সর্বোচ্চ দামে বিক্রির রেকর্ড গড়বে মেসির জার্সিগুলো। কোনো খেলোয়াড়ের জার্সি নিলামে সর্বোচ্চ দামের বিক্রির রেকর্ডটি বাস্কেটবল কিংবদন্তি মাইকেল জর্ডানের। ১৯৯৮ সালে শিকাগো বুলসের হয়ে এনবিএর চূড়ান্ত পর্যায়ে জর্ডান যে জার্সি পরেছিলেন, সেটি গত বছর নিলামে এক কোটি এক লাখ ডলারে বিক্রি হয়েছে।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানাচ্ছে, নিলাম পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানগুলো খেলাধুলার স্মারকের প্রতি ঝুঁকেছে। এতে তাদের ব্যবসা আরও লাভবান হচ্ছে। মেসির জার্সিগুলো নিলামে তোলার বন্দোবস্ত করেছে দেশটির টেক স্টার্টআপ প্রতিষ্ঠান এসি মোমেন্টো। অ্যাথলেটদের খেলাধুলার বিভিন্ন স্মারক ব্যবস্থাপনার কাজ করে প্রতিষ্ঠানটি।

এদিকে ফেসবুক পোস্টে মেসি জানিয়েছেন, এই নিলাম থেকে পাওয়া অর্থের একটি অংশ দেওয়া হবে ইউনিকাসের একটি প্রজেক্টে। বার্সেলোনার শিশু হাসপাতালের সঙ্গে শিশুদের দুরারোগ্য ব্যাধির চিকিৎসায় যৌথভাবে কাজ করছে এই প্রতিষ্ঠান। আগামী ৩০ নভেম্বর থেকে ১৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই নিলাম চলবে। একইসময়ে প্রদর্শনীর জন্য রাখা হবে এই জার্সিগুলো।

উল্লেখ্য, আগের চার আসরে ব্যর্থতার স্মৃতি নিয়েই ২০২২ সালে কাতার বিশ্বকাপ খেলতে নেমেছিলেন লিওনেল মেসি। আসরে দুর্দান্ত খেলে আর্জেন্টিনাকে ৩৬ বছর পর বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হতে সাহায্য করেছেন মেসি। দলীয় সাফল্যের পাশাপাশি টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে ‘গোল্ডেন বল’ জিতেছিলেন মেসি।

পুরো টুর্নামেন্টে মোট ৭ ম্যাচ খেলেছিলেন মেসি। সেখান থেকে ৬টি জার্সি উঠছে নিলামে। গ্রুপ পর্বে সৌদি আরব, মেক্সিকো, দ্বিতীয় রাউন্ডে অস্ট্রেলিয়া, কোয়ার্টার ফাইনালে নেদারল্যান্ডস, সেমিফাইনালে ক্রোয়েশিয়া এবং ফাইনালে ফ্রান্সের বিপক্ষে জার্সিগুলো পরেছিলেন মেসি।

  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন
  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন