সোমবার, ১৫ জুলাই, ২০২৪

মেসির হাতেই উঠলো ব্যালন ডি'অর


৩১ অক্টোবর ২০২৩, ১১:৩২ পূর্বাহ্ণ 

মেসির হাতেই উঠলো ব্যালন ডি'অর
  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন

শুধু গুঞ্জন নয়, একরকম নিশ্চিতই ছিল। ইউরোপীয় সংবাদমাধ্যমগুলোও আগাম  জানিয়ে দিয়েছিল সবকিছু। কোনো কোনো সংবাদমাধ্যম তো আগেই ব্যালন ডি’অরের ওপর তাঁর মুখও বসিয়ে দিয়েছিল। অপেক্ষাটা তাই ছিল শুধু আনুষ্ঠানিক ঘোষণার। সেই ঘোষণাটাই আজ উচ্চারিত হলো প্যারিসের তিয়াটর দু শাতলে। অষ্টমবারের মতো ব্যালন ডি’অর জিতেছেন লিওনেল মেসি।

এর আগে সংবাদ মাধ্যম গুলোতে বলা হয়েছে, এবারের ব্যালন ডি'অর উঠতে যাচ্ছে আর্জেন্টিনার অধিনায়ক লিওনেল মেসির হাতে। কাতারে বিশ্বকাপ জেতায় রেকর্ড অষ্টম ব্যালন ডি’অর তার ঘরে উঠতে যাচ্ছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। শুধু সংবাদ মাধ্যম নয়, আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স (এআই) বিভিন্ন ডাটা বিশ্লেষণ করে জানিয়েছে, মেসিই ব্যালন ডি’অর জয়ের পথে ফেবারিট।

ইউরোপের ফুটবলের কাছে যুক্তরাষ্ট্রে মেজর লিগ সকার (এমএলএস) শিশুতুল্য। ফুটবল পৃথিবীতে যাদের নেই তেমন নামডাক। ইন্টার মায়ামিতে খেলা মেসি প্যারিসে পা রাখবেন ফুটবলের সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কার নিতে।

এদিকে ব্যালন ডি’অর ২০২৩ জেতার দৌড়ে মেসি এবার পেছনে ফেলেছেন ম্যানচেস্টার সিটির নরওয়েজীয় তারকা আর্লিং হলান্ড এবং পিএসজির ফরাসি তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পেকে।

পরিবারের সঙ্গে মেসি

সাদা শার্টের ওপর কালো কোট এবং কালো বো টাই পরে অনুষ্ঠানস্থলে আসেন মেসি। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন তিন ছেলে ও স্ত্রী আন্তোনেল্লা রোকুজ্জো। লিও লিও ধ্বনির মধ্যে প্রথমে স্ত্রী-সন্তানদের সঙ্গে এবং পরে একক ছবিও তোলেন মেসি।

এদিন আইভরি কোস্টের কিংবদন্তি ফুটবলার দিদিয়ের দ্রগবার সঙ্গে পুরস্কার অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন ফরাসি সাংবাদিক ও উপস্থাপক স্যান্ডি হেরিবার্ট। ফুটবলের নক্ষত্রদের ভিড়ে আলাদাভাবে দৃষ্টি কেড়েছে টেনিস মহাতারকা নোভাক জোকোভিচের উপস্থিতিও।

অবশেষে গুঞ্জন সত্যি হলো, ফুটবল খেলোয়াড়দের ব্যক্তিগত নৈপুণ্যের জন্য দেয়া মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার ব্যালন ডি’অর আবারও হাতে উঠেছে আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসির। অনুষ্ঠানে সেরা তরুণ খেলোয়াড়ের কোপা ট্রফি জিতেছেন রিয়াল মাদ্রিদের ইংলিশ তারকা জুড বেলিংহাম। বর্ষসেরা নারী খেলোয়াড়ের পুরস্কার জিতেছেন স্প্যানিশ বিশ্বকাপজয়ী নারী ফুটবলার আইতানা বোনামাতি। আর অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ বর্ষসেরা পুরুষ ফুটবলারের পুরস্কার উঠেছে মেসির হাতে। মেসির ৮ম ব্যালন ডি’অর জেতার ঘোষণা দেন ইংলিশ কিংবদন্তি ডেভিড বেকহাম।

মেসির নাম ঘোষণার পর উপস্থিত সকলেই দাঁড়িয়ে তাঁকে সম্মান জানান। পুরস্কার পাওয়ার প্রতিক্রিয়ায় মেসি বলেছেন, মুহূর্তটা উপভোগের জন্য এখানে আরেক উপস্থিত হতে পেরে আমি আনন্দিত। এ সময় বিশ্বকাপ জেতা নিয়েও নিজের অনুভূতিটা আরেকবার জানান মেসি, বিশ্বকাপ জেতাটা ছিল আমার স্বপ্ন। এটা খুবই বিশেষ ব্যাপার ছিল যে, অন্য দেশের মানুষরাও চেয়েছে আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ জিতুক।

বর্ষসেরা নারী খেলোয়াড় আইতানা বোনামাতি

নিজের অর্জন নিয়ে মেসি বলেন, আমার এমন ক্যারিয়ার আমি স্বপ্নেও ভাবিনি। আমি যা অর্জন করেছি তা করার জন্য আমার ভাগ্য দারুণ সুপ্রসন্ন ছিল। আমি বিশ্বের সেরা দলে খেলেছি, ইতিহাসের সেরা দলে খেলেছি। এটা আমার জন্য ট্রফি জেতা এবং ব্যক্তিগত পুরস্কার জেতার কাজটাকে সহজ করেছে।

মেসি আরও বলেন, সত্যি হচ্ছে, এটা নিয়ে আমি অতটা ভাবছি না। যদি পুরস্কারটা পাই, ভালো। আর যদি না পাই, কিছুই আসে যায় না। ব্যালন ডি’অর নিয়ে এমন নির্লিপ্ততা কেন, সেই কারণও জানিয়েছেন মেসি, আমি আমার ক্যারিয়ারে এটা অনেকবার বলেছি যে ব্যালন ডি’অর গুরুত্বপূর্ণ একটা পুরস্কার। ব্যক্তিগত পর্যায়ে এটা সবচেয়ে সুন্দর পুরস্কার। কিন্তু আমি কখনোই এটাকে অতটা গুরুত্ব দিইনি। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল দলীয় অর্জন। এটা খুবই বিশেষ ব্যাপার, অন্য দেশের মানুষরাও চেয়েছিলেন আর্জেন্তিনা বিশ্বকাপ জিতুক।' মেসি তাঁর ব্যালন ডি'অর প্রয়াত কিংবদন্তী ফুটবলার দিয়েগো মারাদোনাকে উৎসর্গ করেন।

সক্রেটিস অ্যাওয়ার্ড (দাতব্য কাজে সম্পৃক্ততা)- ভিনিসিয়াস জুনিয়র

তবে মেসির এই নির্লিপ্ততাও ব্যালন ডি’অরকে তাঁর দিকে আসা থেকে রুখতে পারেনি। একই সঙ্গে এই পুরস্কার তাঁকে ফের প্যারিসেও ফিরিয়ে এনেছে। পিএসজিতে দুই বছরের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে গত মৌসুম শেষে প্যারিস ছেড়েছিলেন মেসি। তবে এবার চওড়া হাসি নিয়ে প্যারিস ছাড়তে পারবেন এলএম টেন।

কে কোন পুরস্কার জিতছেন

বর্ষসেরা পুরুষ খেলোয়াড়- লিওনেল মেসি

বর্ষসেরা নারী খেলোয়াড়- আইতানা বোনামাতি

বর্ষসেরা ক্লাব (পুরুষ)- ম্যানচেস্টার সিটি

বর্ষসেরা ক্লাব (নারী)-বার্সেলোনা

লেভ ইয়েশিন ট্রফি (সেরা গোলরক্ষক)- এমিলিয়ানো মার্তিনেজ

জার্ড মুলার ট্রফি (সেরা স্ট্রাইকার)- আর্লিং হলান্ড

সক্রেটিস অ্যাওয়ার্ড (দাতব্য কাজে সম্পৃক্ততা)- ভিনিসিয়াস জুনিয়র

কোপা ট্রফি (অনূর্ধ্ব ২১ বছর বয়সী সেরা খেলোয়াড়)- জুড বেলিংহাম