শুক্রবার, ১৪ জুন, ২০২৪

ঠাকুরগাঁও -৩ আসনে, জাতীয় পার্টি ও ওয়ার্কাস পার্টির টানাপোড়েন


২৯ ডিসেম্বর ২০২৩, ৩:০৮ অপরাহ্ণ 

ঠাকুরগাঁও -৩ আসনে, জাতীয় পার্টি ও ওয়ার্কাস পার্টির টানাপোড়েন

ইলেকশন | ছবি: আজকের প্রসঙ্গ

  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন

রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধি: ঠাকুরগাঁও -৩ (পীরগঞ্জ-রানীশংকৈল) আসনে অবশেষে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হাফিজউদ্দীন আহমেদের পক্ষে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিলেন আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার বিকেলে পীরগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের কার্যালয়ে পীরগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে এক বর্ধিত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন সাবেক এমপি (পীরগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের সভাপতি) ইমদাদুল হক। এছাড়াও সভায় সংরক্ষিত নারী আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও জেলা আ.লীগের সহসভাপতি সেলিনা জাহান লিটা, পীরগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ানুল হক বিপ্লব সহ দুই উপজেলা ও পৌরসভার আওয়ামী নেতৃবৃন্দ এসময় বক্তব্য দেন।

পীরগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজওয়ানুল হক বিপ্লব জানান , আ.লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঠাকুরগাঁও-৩ আসনটি জাতীয় পার্টির প্রার্থী হাফিজউদ্দীন আহমেদকে ছাড় দিয়ে নৌকার প্রার্থী সাবেক এমপি ইমদাদুল হককে প্রত্যাহার করিয়ে নিয়েছেন। এজন্য আমাদের কিছুটা হলেও মন খারাপ ছিল। অপরদিকে আমাদের দলের নেতা-কর্মীরা সিদ্ধান্ত হীনতায় ভুগছিলেন। ব্যক্তিগত ভাবে কেউ জাতীয় পার্টির প্রার্থীকে আবার কেউ ওয়ার্কাস পার্টির প্রার্থীকে সমর্থন দিয়েছিলেন। এ অবস্থায় দলের বর্ধিত সভা ডাকা হয়েছে ।  এ ধারাবাহিকতা রক্ষায় এবং প্রধানমন্ত্রীর দিকে লক্ষ্য রেখে দলীয় ভাবে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হাফিজউদ্দীন আহমেদের লাঙ্গল মার্কার পক্ষে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। দলের সকল নেতা-কর্মীদের লাঙ্গল মার্কার পক্ষে কাজ করার জন্য নির্দেশনা দিয়েছেন সাবেক এমপি ইমদাদুল হক।

প্রসঙ্গত: ঠাকুরগাঁও-৩ আসন স্বাধীনতার পর থেকে আওয়ামীগের দখলে থাকলেও ২০০১ সালে হাত ছাড়া হয়ে যায় । এরপর থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত এ আসনটি জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য হাফিজউদ্দীন আহমদের দখলে ছিল। ২০১৪ সালে স্থানীয় আ.লীগের অসহযোগীতার কারণে আসনটি হারায় জাতীয় পার্টি।
পরে এটি চলে যায় ওয়ার্কাস পার্টির দখলে। বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নানান কারণেই জয় হন বিএনপি’র প্রার্থী জাহিদুর রহমান। 
২০২২ সালে বিএনপি’র সংসদ সদস্যরা পদত্যাগ করলে উপ-নির্বাচনে আসনটি আ.লীগের সহায়তায় আবারো পুনঃরুদ্ধার করেন জাতীয় পাটির্র হাফিজউদ্দীন আহমেদ।

চলতি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনে আওয়ামীলীগ থেকে মনোনয়ন পান সাবেক এমপি ইমদাদুল হক, জাতীয় পার্টি থেকে বর্তমান সংসদ সদস্য হাফিজ উদ্দীন আহমেদ, ওয়ার্কাস পার্টি থেকে গোপাল চন্দ্র রায়।

হাজারো জল্পনা কল্পনা শেষে জোটগত কারণে শেষ মুহুর্তে আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছাড় দিয়ে আ.লীগের প্রার্থী ইমদাদুল হককে প্রত্যাহার করে নেয় আওয়ামী। এ আসনটিতে নৌকা মার্কা তুলে নেওয়ার কারনে নির্বাচনী লড়াইয়ের মাঠে থাকে যান জাতীয় পার্টির হাফিজউদ্দীন আহমেদ, ওয়ার্কাস পার্টির গোপাল চন্দ্র রায়, বিকল্প ধারা বাংলাদেশের খলিলুর রহমান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আশা মনি।

ঠাকুরগাঁও -৩ আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিয়ে আ.লীগের প্রার্থীকে প্রত্যাহার করা হলেও স্থানীয় আ'লীগের নেতৃবৃন্দ জাতীয় পার্টির প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী মাঠে নামেননি। তবে কেউ কেউ নিজ উদ্যোগে জাতীয় পার্টির ও ওয়ার্কাস পার্টির প্রার্থীকে সমর্থন জানিয়ে সময় পার করছেন ।

এদিকে চুপচাপ নিস্তব্ধ হয়ে থাকা আ.লীগের নেতা-কর্মীদের নিজ নিজ পক্ষে নিতে জাতীয় পার্টি ও ওয়ার্কাস পার্টির চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে । শেষ পর্যন্ত আ.লীগের বর্ধিত সভায় জাতীয় পার্টির প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নেয় পীরগঞ্জ আওয়ামীলীগ।

স্থানীয় সচেতন মহল বলছেন,  এ আসনে জয় পরাজয় নির্ভর করে আ.লীগের উপর। আ.লীগ দলগত ভাবে জাতীয় পার্টিকে সমর্থন দেয়ায় লাঙ্গলের জন্য জয় লাভ করা এখন অনেকাংশেই সহজ হবে বলে মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন ভোটার ও সমর্থকরা জানান।

এ আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৪৪ হাজার ৩৫৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৭৪ হাজার ৯৬৬ জন এবং মহিলা ১ লাখ ৬৯ হাজার ৩৮৮ জন।

  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন
  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন