শনিবার, ১৮ মে, ২০২৪

সরকারি চাকরিজীবীদের গাড়ির জন্য বরাদ্দ দেড় কোটি


৩ আগস্ট ২০২৩, ৩:৩৭ অপরাহ্ণ 

সরকারি চাকরিজীবীদের গাড়ির জন্য বরাদ্দ দেড় কোটি
  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন

নতুন গাড়ি কেনা বন্ধের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে সরকার। গত সোমবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ নতুন নির্দেশনার মাধ্যমে সরকারি কর্মচারীদের জন্য গাড়ি কেনার পথ খুলে দিয়েছে। এর আগে গত ২ জুলাই অর্থ বিভাগ নতুন যানবাহন কেনা বন্ধের কথা জানিয়েছিল।

পাশাপাশি গাড়ির বাজেটও বাড়ানো হয়েছে। নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী সরকারের শীর্ষ কর্মচারীরা পাবেন আগের চেয়ে বেশি দামি গাড়ি। এতদিন গাড়িবাবদ সর্বোচ্চ বরাদ্দ ছিল ৯৪ লাখ টাকা। এখন তা বাড়িয়ে ১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা করা হয়েছে। অর্থ বিভাগ রেজিস্ট্রেশন, শুল্ক-করসহ গাড়ির দাম নির্ধারণ করে গত সোমবার নতুন নির্দেশনাটি দিয়েছে।

নির্দেশনায় বিভিন্ন মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অধিদপ্তর ও পরিদপ্তরের গ্রেড ১ ও ২ পর্যায়ের কর্মচারীদের জন্য ১ কোটি ৪৫ লাখ টাকা দামের গাড়ি কেনার এখতিয়ার উল্ল্যেখ করা হয়েছে। এছাড়া গ্রেড ৩ বা তার চেয়ে নিম্ন পর্যায়ের কর্মচারীদের জন্য কেনা যাবে ৬৫ লাখ টাকা দামের গাড়ি। 

অর্থ বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ শওকত উল্লাহ স্বাক্ষরিত নির্দেশনায় বলা হয়, সরকারি কর্মচারীদের ব্যবহারের জন্য সর্বোচ্চ ৫২ লাখ টাকার মাইক্রোবাস কেনা যাবে, যা আগে ছিল ৪৪ লাখ টাকা। এ ছাড়া ৪৪ লাখ টাকার অ্যাম্বুলেন্সের বরাদ্দ বাড়িয়ে ৫৪ লাখ, ৩৫ লাখ টাকার প্রাইভেট কারের বরাদ্দ বাড়িয়ে ৪৫ লাখ এবং ৬৯ লাখ টাকার শীতাতপনিয়ন্ত্রিত (এসি) কোস্টার বা মিনিবাস বাবদ বরাদ্দ বাড়িয়ে ৭৫ লাখ টাকা করা হয়েছে।

২৮ লাখ টাকার সিঙ্গেল কেবিন পিকআপের ক্ষেত্রে দাম বাড়িয়ে ৩৮ লাখ টাকা, ৪৯ লাখ টাকার ডাবল কেবিন পিকআপের ক্ষেত্রে ৫৫ লাখ টাকা, ৪২ লাখ ২৯ হাজার টাকার নন-এসি বড় বাস কেনার ক্ষেত্রে দাম বাড়িয়ে ৪৬ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে চার শ্রেণির যানবাহনবাবদ বরাদ্দ অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে নন-এসি মিনিবাস ৩২ লাখ টাকা, ৫ টনের ট্রাক ৩৯ লাখ টাকা, ৩ টনের ট্রাক ৩১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা এবং মোটরসাইকেল ১ লাখ ৪০ হাজার টাকা।

চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরের বাজেটে ‘পরিবহন সরঞ্জামাদি’ খাতে যে ৬ হাজার ৫৫১ কোটি টাকা বরাদ্দ রয়েছে, তা থেকেই এসব গাড়ি কেনা হবে। ২০২২-২৩ অর্থবছরে এ খাতে ৮ হাজার ৮০ কোটি টাকার বরাদ্দ থাকলেও সরকারের কৃচ্ছ্রনীতির কারণে সংশোধিত বাজেটে তা কমিয়ে ৪ হাজার ৭১৮ কোটি টাকা করা হয়।

অর্থ বিভাগের এক সূত্র জানায়, অর্থ বিভাগ থেকে নতুন দায়িত্ব পেয়ে আরেকটি দপ্তরের প্রধান কর্মকর্তা পদে কাজ করছেন এমন এক কর্মকর্তা আগের গাড়িতে আর চড়তে চাইছেন না। এজন্যই নতুন গাড়ি কেনার এ কৌশল বের করেছে অর্থ বিভাগ। ডলারের তুলনায় বাংলাদেশি টাকার অবমূল্যায়ন হওয়া এবং বিশ্ববাজারে গাড়ির দাম বেড়ে যাওয়া—উভয় কারণ বিবেচনায় রেখেই নতুন দর নির্ধারণ করা হয়েছে।


  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন
  গুগল নিউজে ফলো করে আজকের প্রসঙ্গ এর সাথে থাকুন